ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ শ্রাবণ ১৪২৮, ০৫ আগস্ট ২০২১, ২৫ জিলহজ ১৪৪২

জাতীয়

বছরে প্রায় ২ লাখ শিক্ষার্থীকে নৈতিক শিক্ষা দিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১০০ ঘণ্টা, জুন ১৭, ২০২১
বছরে প্রায় ২ লাখ শিক্ষার্থীকে নৈতিক শিক্ষা দিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

ঢাকা: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, ২০৪১ সালের উন্নত বাংলাদেশের নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন দক্ষ ও সুনাগরিক তৈরিতে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম অপরিসীম ভূমিকা রাখছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ থেকে অনলাইনে ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম’ শীর্ষক জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

ফরিদুল হক খান বলেন, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন দপ্তর/সংস্থাগুলো ধর্মীয় মূল্যবোধ সম্পন্ন অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণের মহান লক্ষ্যে ধর্মীয় মূল্যবোধ ও নৈতিকতা বিকাশের মাধ্যমে উদার ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সার্বজনীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মদার্যাপূর্ণ এ প্রকল্পটি সারাদেশের ছয় হাজার ৪৫০টি মন্দির অবকাঠামো ব্যবহার করে পাঁচ হাজার ৮০০টি প্রাক-প্রাথমিক, ৪০০টি গীতা শিক্ষা ও ২৫০টি বয়স্ক স্তরের শিক্ষাকেন্দ্র পরিচালনা করছে এবং প্রতিবছর এক লাখ ৯২ হাজার ২৫০ জন শিক্ষার্থীকে নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধসমৃদ্ধ উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা দিচ্ছি, যা হিন্দু জনগোষ্ঠীর আশাব্যঞ্জক সাড়া জাগিয়েছে।

আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি উদার, ধর্মনিরপেক্ষ, প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও সম্প্রীতির উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার বাস্তবরূপ দিতে তার ১৯৯৬-২০০১ শাসনামলে প্রথম এ প্রকল্প নিয়ে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ দেশের উন্নয়ন যেমন আজকের বিশ্বের বিস্ময় রোল মডেল; ঠিক তেমনি এ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিও বিশ্বের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।

মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম (পঞ্চম পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) রঞ্জিত কুমার দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় আরও বক্তব্য রাখেন হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, ধর্মসচিব মো. নূরুল ইসলাম, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস-চেয়ারম্যান সুব্রত পাল, ট্রাস্টি ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, শ্যামল সরকার, ট্রাস্টি রেখ রাণী গুণ, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. আব্দুল আওয়াল হাওলাদার, ডা. দিলীপ কুমার ঘোষ প্রমুখ।
 
বাংলাদেশ সময়: ২০৪৫ ঘণ্টা, জুন ১৭, ২০২১
এমআইএইচ/ওএইচ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa